পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক কি?What is peer to peer network? P2P নেটওয়ার্ক কি? | Wizstudy

Wizstudy Network Series
Q n A 
Topic: P2P 
By:Hossain Rahat

পিয়ার-টু-পিয়ার নেটওয়ার্ক 

Peer-to-Peer Network


Peer-to-Peer-network-p2p-wizstudy

পি-টুু-পি নেটওয়ার্ক


পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক আসলে আমাদের খুবই পরিচিত একটি নেটওয়ার্ক পদ্ধতি। আমরা প্রতিনিয়তই ব্লুটুথ কিংবা শেয়ার-ইট ব্যবহারের সময় এই নেটওয়ার্ক তৈরী করে থাকি। 

আলাদা করে "সার্ভার কম্পিউটার " ছাড়াই যখন দুই বা ততোধিক কম্পিউটারকে সরাসরি পরস্পরের সাথে যুক্ত করে নেটওয়ার্ক গঠন করা হয় তখন তাকে পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক বলে।

পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক কে সংক্ষেপে  P2P নেটওয়ার্ক  ও বলা হয়।


আমরা জানি সাধারনত যখন কোনো নেটওয়ার্ক গঠন করা হয় তখন ঐ নেটওয়ার্কের জন্য একটি কেন্দ্রীয় সার্ভার কম্পিউটার বসানো হয়, নেটওয়ার্কের কম্পিউটারগুলো যখনি কোনো ফাইল শেয়ার করে তখনি তা সেইভ হয়ে যায় ওই সার্ভার কম্পিউটারে। 

কিন্তু পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্কের ক্ষেত্রে ব্যাপারটি সম্পূর্ণ ভিন্ন। 

এই ধরনের নেটওয়ার্ক কোনো ধরনের সার্ভারের সাহায্য ছাড়াই এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ডিজিটাল ফাইল শেয়ার করার জন্য তৈরী করা হয়।

 অর্থাৎ এই নেটওয়ার্ক সিস্টেমে যুক্ত থাকা কম্পিউটারগুলোর মধ্যে কোনো কিছু আদান প্রদান হলে তা শুধুমাত্র যেই কম্পিউটারে তথ্য পাঠানো হবে সেখানেই যাবে, অন্য কোথাও এগুলো সেইভ হবেনা। 

এছাড়া শুধুমাত্র এর ব্যবহারকারীই শেয়ারকৃত ডেটাগুলো দেখতে পাবে।

এই নেটওয়ার্কে থাকা কম্পিউটারগুলো যখন একে অপরের সাথে ফাইল শেয়ার করে তখন তাকে বলা হয় পিয়ার টু পিয়ার ফাইল শেয়ারিং


এক নজরে P2P নেটওয়ার্কের সুবিধা/অসুবিধা /বৈশিষ্টগুলো:

সুবিধা:

  • ২.কোনো সার্ভারের প্রয়োজন নেই কারণ কম্পিউটার গুলো সার্ভার ছাড়াই নিজেদের মধ্যে ডেটা আদানপ্রদান করে।
  • ৩.নেটওয়ার্ক ব্যবস্থাপনায় দক্ষ জনবলের প্রয়োজন হয়না, ব্যবহারকারী নিজেই সবকিছু ম্যানেজ করতে পারে।
  • ৪.নেটওয়ার্ক সেট-আপ করা অত্যন্ত সহজ।
  • ৫.এই ধরনের নেটওয়ার্কে সার্ভার না থাকায় কোন ডিভাইস ডাউন হয়ে গেলেও নেটওয়ার্ক সচল থাকে। কিন্তু যেসব নেটওয়ার্কে সার্ভার থাকে (যেমন : ক্লায়েন্ট-সার্ভার নেটওয়ার্ক) সেখানে সার্ভার ডাউন হলে পুরো নেটওয়ার্ক ব্যবস্থাই অচল হয়ে যায়।

অসুবিধা:

  • ১. এই নেটওয়ার্কে যুক্ত প্রতিটি কম্পিউটার একে অপরকে একসেস করতে পারে তাই, কাজের গতি ধীর হয়।
  • ২. যেহেতু কোনো সার্ভার থাকেনা সেহেতু বিভিন্ন কম্পিউটারে রক্ষিত ফাইল কেন্দ্রীয়ভাবে ব্যাক-আপ নেওয়া সম্ভব হয়না। 
  • ৩.এই ধরনের নেটওয়ার্ক হ্যাক করার সুযোগ থাকে বেশী।

Post a Comment

Previous Post Next Post